Skip to main content

শিবানী শর্মা

সারপ্রাইজ

শিবানী শর্মা


সুচিত্রা বোর্ডিং পাস নিয়ে, লাউঞ্জে বসতেই সামনের ডিসপ্লে বোর্ডে দেখল, দিল্লীর ফ্লাইট দু ঘণ্টা দেরীতে।  সঙ্গে সঙ্গে একটা বিরক্তি ঘাড় বেয়ে উঠলো। দু ঘণ্টা সময় কাটানো বড্ড বোরিং আর তাছাড়া আজ তাড়াতাড়ি বাড়ি ফেরা খুব জরুরী। আজ তার বুচানের জন্মদিন। হোটেল, কনফারেন্স, ডিনার, গত কাল সারাদিনে একদম সময় পায়নি, তবুও তার মধ্যে বুচানের জন্য একটা গিফট কিনতে পেরেছে... একটা বেশ দামী আই-ফোন।  এখন মাত্র এগারোটা বাজে, একটার সময় টেক অফ করলেও, চারটে অবধি বাড়ি ফেরা যেতে পারে । সুচিত্রা এবার উঠে গিয়ে কফি কিনে আনল। হাতে বিশেষ কোন লাগেজ নেই, তাই ঘোরা ফেরা সুবিধে। স্বামী মারা যাবার পর, সুচিত্রা নীচের তলায় থাকে, একলা নিজের মতন। ওপরের তলায় ছেলে বউ আর তার নাতি । উপরের আলাদা সিঁড়ি, ওরা ওঠা নামা করে, থাকে নিজের মতো ।কথাবার্তা কমই হয়। সুচিত্রা অর্থনীতির প্রফেসর, এখন বয়স হয়েছে, সপ্তাহে শুধু দুদিন ইউনিভার্সিটিতে পড়ায়। কিছুটা সময়টা বই লেখা, মাঝে মাঝে এই রকম এক আধটা কনফারেন্স আর বাকী সময়টা কাটে বুচান কে নিয়ে। বুচানই এখন তার সবচেয়ে বড় বন্ধু। এবার দশ বছরের হল বুচান। আজকালকার বাচ্চা, ভীষণ সপ্রতিভ, ওদের খুশি করা ভীষণ কঠিন, তাই এই দামী গিফট । আজ, ওকে একটা বড় সারপ্রাইজ দেবে, ওর ঠাম্মা।

দিল্লীতে নেমে, লাগেজ নিয়ে, ট্যাক্সি ধরতে ধরতে সাড়ে তিনটে । ট্যাক্সি নিয়ে এবার কনটপ্লেস, বুচানের সবচেয়ে প্রিয় চকোলেট কেক, অর্ডার ছিল না তাই নাম লিখিয়ে প্যাক করিয়ে আরও আধ ঘণ্টা। বাড়ি পৌঁছতে পৌঁছতে প্রায় পাঁচটা । বাড়িতে ঢুকে, জিনিসপত্র রেখে ইন্টার-কম ডায়াল করল, উপরে রিং হচ্ছে, কেউ তুলছে না।

সুচিত্রা এবার নিজের মোবাইল ফোন বার করলো, দেখে সেটা বন্ধ। সঙ্গে সঙ্গে মনে পড়লো গত কাল সকালে কনফারেন্স হলে সে এটা বন্ধ করেছিল, তার পর আর অন করা হয়নি, কারণ এরপর আর দরকারই হয়নি, আর মনেই নেই ।  দু মিনিট পরে ছেলে তীর্থ কে ফোন করল সুচিত্রা, অনেকক্ষণ রিং যাবার পর, তীর্থ ফোন তুলল, একেবারে যেন ফেটে পড়ল, ‘তুমি কোথায় মা, কাল থেকে তোমাকে ফোন করছি, তোমার ফোন বন্ধ। তোমার হোটেল ও জানা ছিল না, নইলে ওখানে মেসেজ ছাড়তাম কিছুই তো জানাতে চাও না তুমি আমাদের। আমরা তো জিম করবেট এসেছি বুচান কে নিয়ে, পরশু ফিরবো । 

সুচিত্রা একটু থমকে গেলো, ‘তোদের এই প্ল্যান আমাকে জানাস নি তো’।  তীর্থ বলল, মা এটা বুচানের জন্য একটা সারপ্রাইজ ছিল। তাই গতকাল রাত্রেই ওকে জানানো হয়েছে। এই নাও তুমি বুচানের সাথে কথা বল । 

এবার অপর প্রান্তে এবার বুচান , ‘হাই ঠাম্মা, তুমি কোথায়, মিসিং ইউ সো মাচ’
সুচিত্রার হটাতই কেমন যেন কান্না পেয়ে গেলো, তবুও শক্ত হয়ে বলল, ‘হ্যাপি বার্থ ডে বুচান, তুমি এনজয় কর, আচ্ছা বাই’। 

সুচিত্রা মুখ হাত না ধুয়ে, সেই কাপড়েই, অনেকক্ষণ বসে রইল, চুপচাপ । খুব একা, নিঃস্ব, অসহায় লাগছিলো নিজেকে। নিজের ছেলের জন্য, নাতির জন্য খুব মন খারাপ হচ্ছিল। ছটা নাগাদ এক কাপ চা খেয়ে, কাপড় বদলে, সুচিত্রা এবার বাড়ির বাইরে । 

এই পাড়ার ঠিক পিছন দিকেই একটা বস্তি, লাগোয়া ছোট্ট পার্ক । তার একটা বেঞ্চে বসে, এখন এক অদ্ভুত, অলীক, অবর্ণনীয় সুখে ডুবে আছে, সুচিত্রা।  পনেরো কুড়িটা নানা বয়সের বাচ্চা, ওকে ঘিরে হইচই করছে, নাচছে, হাততালি দিচ্ছে, ছুটোছুটি করছে, ওদের হাত, মুখ চকোলেট কেকে মাখামাখি।


-------------------------------------------------------

দাগ 




দরজায় কড়া নাড়ার আওয়াজে বাসন্তীর ঘুম ভাঙল। রাখাল বাড়ি ফিরেছে। শীতের সকাল, সাতটা বাজে অথচ বাইরেটা এখনও ঝাপসা, অন্ধকার, কুয়াশাচ্ছন্ন । দরজা খুলে দিয়ে বাসন্তী আবার লেপের ভিতর ঢুকে পড়লো। কয়েকদিন ধরে বড় ধকল যাচ্ছে , বাসন্তীর মা প্রমোদাবালা হাসপাতালে, পালা করে সবাই ডিউটি দিচ্ছে। দিনে কখনও সে, কখনও মেজদি । রাতে বেশীর ভাগ রাখালই থাকছে। আশীর কাছাকাছি বয়েস প্রমোদার, জলে ভরে গেছে শরীরটা, ফুলে গেছে, গতকাল থেকে খুব ভাসা ভাসা, আবছা জ্ঞান ।

আজ মেজদির পালা, বাসন্তী লেপের উষ্ণ ওমে মুখ গুঁজে শুয়ে থাকলো। শুয়ে শুয়ে শুনছিল রাখাল পাশের ঘরে লোহার আলমারি খুলে কি সব যেন করছে। কোন একটা বাক্সও যেন খুলল আবার বন্ধ করল । লোকটা তার স্বামী হলেও লোকটাকে সে একেবারেই বিশ্বাস করেনা। গত আঠারো বছরে এমন কোন ব্যবসা নেই যাতে রাখাল হাত দেয় নি। দুর্ভাগ্যবশত কোনটাতেই সে সফল হয়নি। এক রত্তি সোনা নেই আজ বাসন্তীর গায়ে, বাড়ি, জমি সব বন্ধক পড়ে আছে। ব্যবসা সূত্রে বাইরে কত ধার দেনা, বাসন্তীর মায়ের কাছ থেকেও কত বার টাকা নিয়ে এসেছে রাখাল, তার কোন হিসেবই নেই। বাসন্তীর কয়েকটি টিউশনিতে সংসারটা চলছে। সন্তান নেই তাদের, হয়নি, এটাই বাঁচোয়া।

দুপুরে রান্না করে খেতে ডাকল রাখালকে । সে তখন গভীর ঘুমে। কোন মতে উঠে স্নান করে, নাকে মুখে গুঁজে, গরম কোট আর মাথায় মাফলার পেঁচিয়ে রাখাল কোথায় যেন যাবার জন্য তৈরি। লোকটার এত লোকসান, তবু একটুও দমেনি। গত কয়েক মাস ধরে আবার কি এক হুজুগে মেতেছে। এখনও খোলসা করে কিছু বলেনি, তবে কয়েকদিন ধরে বেশ ভাবনা চিন্তায় আছে, সেটা বোঝা যায়। গত মাসে বাসন্তীর মায়ের কাছেও কয়েকবার হানা দিয়েছে। বাবা শুধু বাড়িটুকুই ছেড়ে গিয়েছিলেন। বাড়ির একটা অংশ ভাড়া দিয়েই মা এতকাল চালিয়েছে । নিরক্ষর তার মা তাদের তিন বোনকে পড়াশোনা করিয়েছে, যথাসাধ্য বিয়েও দিয়েছে। আজ সকাল থেকে রাখালের হাবভাব একটু অন্য রকম। ভীষণ চুপচাপ। বাসন্তী তাই বিশেষ ঘাঁটাল না।

বিকেলে পাঁচটায় পাশের বাড়িতে টেলিফোন। ওরাই ডেকে দিল । মেজদি লাইনে। মা আর নেই। রাতে মাকে বাসন্তীর বাড়িতেই নিয়ে আসা হল। রাখাল তখনও ফেরেনি। সকালেই দাহকার্য করা হবে। বড়দিদের খবর দেওয়া হয়েছে, ছোট মাসিরাও রাঁচি থেকে রওনা দিয়েছে । শীতের রাত, পাড়া পড়শি কেউই বেশীক্ষণ বসলো না। মায়ের মাথার কাছে রাখা প্রদীপটা উস্কে দিয়ে বাসন্তী মায়ের কাছে বসলো । মার গলার কাছে মালা দেবার সময় সাদা চাদরটা একটু সরে গিয়েছে, হাত দুটো বুকের কাছে জড়ো করা। চাদরটা টেনে উপরে তুলে গিয়ে বাসন্তী একটু চমকে গেলো, মার বাঁ হাতের বুড়ো আঙুলে হাল্কা নীলচে রঙের ছোপটা কিসের? কেন ?

বাড়ির বাইরে আধো অন্ধকারে মেজ জামাইবাবু আরও কিছু পুরুষ মানুষ জটলা করে দাঁড়িয়ে কথা বলছে, আহত বাসন্তী তাদের মধ্যে এখন রাখালকে খুঁজছিল। 


Comments

Popular posts from this blog

প্রকাশ হলো দেহলিজ -৬

দেহলিজ-৬ প্রকাশিত হলো   ক্লিক করুন | Click Here   বহু প্রতিক্ষার পর, ফির`সে দেহলিজ । প্রথমেই কৃতজ্ঞতা জানাই কবি ও লেখক বন্ধুদের । তারা ভরসা রেখেছেন, কঠিন সময়ে যোগাযোগ রেখেছেন, ফোনে কথা বলেছেন । এই করোনা কালে, বেঁচে থাকাই হলো একটা গল্প, লড়াই করে যাওয়াই একটা কবিতা । দিল্লি এনসিআর এর কবি বন্ধুরা আমার সঙ্গে ছিলেন, তারা আমার হয়ে দেহলিজের লেখা নিয়েছেন, নিজেরা এডিট করেছেন । দিল্লির এই রুক্ষতার আবহেও এতসুন্দর একটা সাহিত্য উপস্থাপনা আমাদের দিয়েছেন, আমি সেই দেহলিজ সহযোগীদের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই । শুধু দিল্লি নয়, মেদিনীপুর, শিলিগুড়ি, বহরমপুর, হাওড়া, বাঁশদ্রোনী থেকেও আমাদের সঙ্গে থেকেছেন, ধন্যবাদ জানাই সেইসব লেখক ও কবিদের ।    এই সংখ্যায় কিছু নতুন টেমপ্লেট নেওয়া হলো । ডেস্কটপ ও মোবাইল থিম আলাদা করা হয়েছে । নতুন করে সাজানো হয়েছে মেনু লিংক । অটোমেশন করা হয়েছে । সংখ্যায় বৈচিত্র নিয়ে কিছু কাজ করা হলো । কবিতা ছাড়াও রাখা হলো মুক্তগদ্য, অনূদিত নাটক, বই রিভিউ, স্মৃতিচারনা ও ছোট হল্প । আর একটি বিষয় নিয়ে এই প্রথম কাজ করা হলো সেটা হলো - কবিতা ও চিত্রকলার মিলনসংহার । ৬ জন কবির কবিতাকে উডকাট ব্লাক এন্ড হো

চৈতালি দাস

নীপবিথি চৈতালি দাস প্রতিদিনের মত আজও ঠিক সন্ধে সাতটায় শুভ্রর ফোনটা এলো । গত দু - মাস হল এই ফোনটার অপেক্ষায় থাকে গার্গী ‌।সাতটা বাজার আগে থেকেই মোবাইলটা নাড়া চাড়া করে । কখন ও কখন ও আবার  মনে হয় মোবাইল এর রিংটোন টা মিউট করা আছে হয়তো  ,শুভ্রর ফোন বেজে গেছে শুনতে পায়নি । তারপর হাতের মুঠোয় ধরা মোবাইলটা ভালো করে দেখে বোঝে যে এসবই তার মনের ভুল । মোবাইল এর সাউণ্ড একেবারে ম‍্যক্সিমামে  দেওয়া  আছে। --হ‍্যাঁ , হ‍্যালো শুভ্র বলো বলো । -- কাল তো  তোমাদের ওদিকে ভয়ানক ঝড় - বৃষ্টি  হয়েছে দেখলাম । তোমরা ঠিক আছো তো? সকালে নিউজে খবরটা দেখতে দেখতে ভাবলাম অফিসে পৌঁছেই  তোমাকে একটা ফোন করবো কিন্তু অফিসে ঢোকার পর থেকে একটার পর একটা এমন কাজে ফেঁসে গেছি যে ফোন করতে পারিনি, এই জাস্ট পাঁচ মিনিট আগে মিটিং শেষ করে নীচে নেমে সিগারেটটা ধরিয়ে তোমাকে ফোন টা লাগালাম। -হ‍্যাঁ শুভ্র কাল ঝড়ের এই তাণ্ডবে সারা কলকাতা তছনছ হয়ে গেছে , টিভি তে বলছিল ঝড়টা নাকি প্রায় একশো কিলোমিটার বেগে চলেছিল। আমার তো ভয় করছিলো যে সত্তর বছরের পুরোনো এই বাড়ি না ভেঙে পড়ে ‌। পুরো বাড়িটা কাঁপছিল ঝড়ের দাপটে । আমাদের বাগানে  একটা  আমগাছ ও পড়েছে ,তবে

আসছে দেহলিজের সংখ্যা - ৬

 প্রকাশ পাচ্ছে দেহলিজ-৬ করোনাকালের শুরুতে প্রকাশ পেয়েছিলো, দেহলিজ-৫ ; তেমন উচ্চবাচ্য হয়নি, ইচ্ছে করেই করা হয়নি, মানুষের কাছে বেঁচে থাকাই ছিলো একটা কবিতা । লকডাউন শুরু হলো, মানুষ আটকা পড়লো ঘরে । শুরু হলো ঘরে বসে লাইভ টেলিকাস্ট । দেহলিজে - নতুন গ্রুপ একটিভিটি বেড়ে উঠেছে । তার একটা খসড়া এই রকমঃ  প্রিয় কবি বন্ধুগণ   আজকের এই বিশেষ অবসরে, আমার কিছু যত্নে লালিত প্রস্তাব রাখার অভিপ্রায়ে , এই পোস্টের অবতারণা  । দেহলিজ পত্রিকার সম্পর্কে এই  বিষয়টি একটা অভিনব ও যুগান্তকারী বলেও  মনে হয় আমার । দিল্লির যানজট, লকড ডাউন,  অফিস ব্যস্ততা, বাংলা ভূখণ্ডের দূরত্বে ভৌগলিক অবস্থান , উৎসাহী কবির স্বল্পতা বাংলা চর্চার ক্ষেত্রে একটা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে । তদুপরি ভাষার বিবিধতা , জাঠ হরিয়ানভি ঠাট,  পাঞ্জাবী কালচার আগ্রাসন করে নিয়েছে অনেক কিছু । বর্তমান দেশব্যাবস্থা, রাজনৈতিক সমীকরণ সাহিত্য দিল্লি-বক্ষে সাহিত্য প্রয়াসের প্রতিকুল সততই । এই রকম চ্যালেঞ্জ নেওয়াটাও একটি সাহসী পদক্ষেপ , আমাদের একত্রিত প্রয়াসে  আমরা বিভিন্ন সাহিত্য আড্ডা ও অনলাইন পত্রিকার মাধ্যমে তবুও তুলে ধরেছি । দেহলিজের এই অগ্রগতি আমাদের একটা আশ